জগৎ কুটির

‘বাড়ি’ কোথায়? অমর্ত্য সেনের কাছে প্রশ্নটার অনেক উত্তর। ঢাকা, যেখানে তাঁর শৈশবের অনেকটা সময় কেটেছে; শান্তিনিকেতন, যেখানে তিনি বাবা-মা এবং দাদু-দিদিমার কাছে থেকেছেন, স্কুলজীবন কাটিয়েছেন; কলকাতা, যেখানে কলেজে অর্থনীতি পড়া শুরু করেছেন, যোগ দিয়েছেন ছাত্র আন্দোলনে; এবং কেমব্রিজ, উনিশ বছর বয়সে যেখানে পৌঁছেছিলেন, ট্রিনিটি কলেজে গবেষণা করতে। এই জায়গাগুলির প্রত্যেকটির পরিবেশ অনবদ্যভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন অমর্ত্য সেন। শান্তিনিকেতনে স্কুলের খোলামেলা পরিবেশ, কলেজ জীবনের কলকাতায় কফি হাউসের সজীব আড্ডা, কেমব্রিজে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবং দার্শনিকদের সঙ্গে গভীর আলোচনা, এই সব কিছুই তাঁর চিন্তাভাবনার দিগন্ত প্রসারে খুব বড় ভূমিকা নিয়েছিল। ইউরোপ এবং আমেরিকায় বেশ কয়েক বছর কাটিয়ে ১৯৬৩ সালে তিনি দেশে ফিরলেন। তখন তাঁর বয়স ত্রিশ। জীবনের এক মূল্যবান পর্ব সমাপ্ত হল। জগৎ কুটিরা দেখায়, অমর্ত্য সেনের জীবনের নানা অভিজ্ঞতা কীভাবে অর্থনীতি, দর্শন, পরিচিতি, কমিউনিটি, দুর্ভিক্ষ, লিঙ্গবৈষম্য, সামাজিক চয়ন, যুক্তিপ্রয়োগ এবং জনপরিসরে প্রকাশ্য আলোচনার মতো বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর ধারণাগুলিকে গড়ে তুলেছে। এই বইয়ে পরিস্ফুট হয়ে ওঠে জ্ঞানচর্চার আনন্দ এবং বন্ধুত্বের গুরুত্ব। সব কিছুর উপরে তিনি যে দিকগুলিতে জোৱ দিয়েছেন সেগুলি হল – আমাদের চিন্তাকে যথাসম্ভব উদার ও প্রসারিত করা, দেশকালের সীমা অতিক্রম করে মানবিক সহমর্মিতা এবং সহবোধের অনুশীলন করা, এবং জগতের মাঝে আপন কুটির খুঁজে নেওয়া।

৳ 1,200.00

Out of stock

Book Details

Binding Type

Language

ISBN

Publishers

Release date

Pages

About The Author

অমর্ত্য সেন

(জন্ম: ৩রা নভেম্বর, ১৯৩৩) একজন নোবেল পুরস্কার বিজয়ী ভারতীয় বাঙালী অর্থনীতিবিদ ও দার্শনিক। দুর্ভিক্ষ, মানব উন্নয়ন তত্ত্ব, জনকল্যাণ অর্থনীতি ও গণদারিদ্রের অন্তর্নিহিত কার্যকারণ বিষয়ে গবেষণা এবং উদারনৈতিক রাজনীতিতে অবদান রাখার জন্য ১৯৯৮ সালে তিনি অর্থনৈতিক বিজ্ঞানে ব্যাংক অফ সুইডেন পুরস্কার (যা অর্থনীতির নোবেল পুরস্কার হিসেবে পরিচিত) লাভ করেন। অমর্ত্য সেনই জাতিসংঘের বিভিন্ন দেশের শিক্ষা এবং মানব সম্পদ উন্নয়ন সম্পর্কে ধারণা পাওয়ার জন্য মানব উন্নয়ন সূচক আবিষ্কার করেন। তিনিই প্রথম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক না হয়েও ন্যাশনাল হিউম্যানিটিস মেডালে ভূষিত হন।

‘বাড়ি’ কোথায়? অমর্ত্য সেনের কাছে প্রশ্নটার অনেক উত্তর। ঢাকা, যেখানে তাঁর শৈশবের অনেকটা সময় কেটেছে; শান্তিনিকেতন, যেখানে তিনি বাবা-মা এবং দাদু-দিদিমার কাছে থেকেছেন, স্কুলজীবন কাটিয়েছেন; কলকাতা, যেখানে কলেজে অর্থনীতি পড়া শুরু করেছেন, যোগ দিয়েছেন ছাত্র আন্দোলনে; এবং কেমব্রিজ, উনিশ বছর বয়সে যেখানে পৌঁছেছিলেন, ট্রিনিটি কলেজে গবেষণা করতে। এই জায়গাগুলির প্রত্যেকটির পরিবেশ অনবদ্যভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন অমর্ত্য সেন। শান্তিনিকেতনে স্কুলের খোলামেলা পরিবেশ, কলেজ জীবনের কলকাতায় কফি হাউসের সজীব আড্ডা, কেমব্রিজে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবং দার্শনিকদের সঙ্গে গভীর আলোচনা, এই সব কিছুই তাঁর চিন্তাভাবনার দিগন্ত প্রসারে খুব বড় ভূমিকা নিয়েছিল। ইউরোপ এবং আমেরিকায় বেশ কয়েক বছর কাটিয়ে ১৯৬৩ সালে তিনি দেশে ফিরলেন। তখন তাঁর বয়স ত্রিশ। জীবনের এক মূল্যবান পর্ব সমাপ্ত হল। জগৎ কুটিরা দেখায়, অমর্ত্য সেনের জীবনের নানা অভিজ্ঞতা কীভাবে অর্থনীতি, দর্শন, পরিচিতি, কমিউনিটি, দুর্ভিক্ষ, লিঙ্গবৈষম্য, সামাজিক চয়ন, যুক্তিপ্রয়োগ এবং জনপরিসরে প্রকাশ্য আলোচনার মতো বিভিন্ন বিষয়ে তাঁর ধারণাগুলিকে গড়ে তুলেছে। এই বইয়ে পরিস্ফুট হয়ে ওঠে জ্ঞানচর্চার আনন্দ এবং বন্ধুত্বের গুরুত্ব। সব কিছুর উপরে তিনি যে দিকগুলিতে জোৱ দিয়েছেন সেগুলি হল – আমাদের চিন্তাকে যথাসম্ভব উদার ও প্রসারিত করা, দেশকালের সীমা অতিক্রম করে মানবিক সহমর্মিতা এবং সহবোধের অনুশীলন করা, এবং জগতের মাঝে আপন কুটির খুঁজে নেওয়া।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “জগৎ কুটির”

Your email address will not be published.